সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৯

চলচ্চিত্রে অনুদান বিষয়ে তথ্য মন্ত্রণালয় যা বলল

নিউজ ডেস্কঃ চলচ্চিত্রে সরকারি অনুদান নিয়ে বিভ্রান্তির কোনো অবকাশ নেই বলে তথ্য মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে।

সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ছবি বাছাইকে কেন্দ্র করে চূড়ান্ত অনুদান কমিটি থেকে চারজনের পদত্যাগ করার পর বুধবার তথ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে বিবৃতি দেয়।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘২০১৮-১৯ অর্থ বছরে তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে ৮টি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের জন্য অনুদান দেয়া হয়েছে। অনুদানপ্রাপ্ত চলচ্চিত্রের মধ্যে দেশের চলচ্চিত্র জগতের কিংবদন্তী সারাহ বেগম কবরীর ‘এই তুমি সেই তুমি’ এবং একুশে পদকপ্রাপ্ত শিক্ষাবিদ ও প্রখ্যাত অভিনয়শিল্পী ড. ইনামুল হকের ‘১৯৭১-সেইসব দিন’–দু’টি চলচ্চিত্রের বিষয়ে ১১ সদস্যের অনুদান কমিটির চারজন অজানা কারণে ক্রমাগতভাবে অসম্মতি প্রকাশ করে আসছিলেন।’

এতে আরও বলা হয়েছে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা সমুন্নত রাখা এবং চলচ্চিত্র অঙ্গনে দেশবরেণ্য চলচ্চিত্র ব্যক্তিত্বদের অবদান রাখার সুযোগ দেবার লক্ষ্যে কমিটির সর্বসম্মতিক্রমে সুপারিশকৃত সবকটি চলচ্চিত্রের সাথে উল্লিখিত দু’টি চলচ্চিত্রকেও অনুদানের আওতায় আনা হয়, যার সাথে অনুদান কমিটির সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যবৃন্দ সহমত পোষণ করেছেন। এবিষয়ে বিভ্রান্তির কোনো অবকাশ নেই।’

এর আগে অনুদান দেওয়ার প্রক্রিয়ায় কিছু সিদ্ধান্ত পরিবর্তনের অভিযোগ এনে অনুদান কমিটি থেকে পদত্যাগ করেন চার সদস্য– মামুনুর রশীদ, নাসির উদ্দিন ইউসুফ, মোরশেদুল ইসলাম ও মতিন রহমান।

তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিবৃতি অনুযায়ী, সারাহ বেগম কবরীর ‘এই তুমি সেই তুমি’ এবং ড. ইনামুল হকের ‘১৯৭১-সেইসব দিন’ চলচ্চিত্র দুটির বিষয়ে চূড়ান্ত অনুদান কমিটি থেকে পদত্যাগ করা চারজন ‘অজানা কারণে’ ক্রমাগতগত অসম্মতি জানিয়ে আসছিলেন।

এই চারজনের পদত্যাগ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. ইনামুল হক বলেন, ‘তাদের পদত্যাগের বিষয়টিকে আমি ভালো চোখে দেখি না। কমিটির সদস্য হিসেবে তাদের অনেক দায়িত্ব আছে। তারা মন্ত্রণালয়ের কাছে জানতে চাইতে পারতেন যে কী হয়েছে। তারা মন্ত্রীর কাছে জানতে চাইতে পারতেন। তাহলে এভাবে পদত্যাগের প্রয়োজনই হয়তো হতো না।’

অনুদান কমিটির পদত্যাগী সদস্যরা তার ছবি বারবার তালিকা বাদ দিয়েছে– এমন অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘তারা আমার ছবি বারবার বাদ দিয়েছেন। কিন্তু কেন বাদ দিয়েছেন সে বিষয়ে তারা কোনো ব্যাখ্যা দেননি। আমার ছবি কেন অনুদান পাবে না, এটার ঘাটতি কী– সে বিষয়ে তারা কিছু বলেননি। আমার মনে হয়, তারা হয়তো চান না– আমরা কাজ করি। তারা হয়তো চান– তাদের মনের মত লোক, তাদের পছন্দের লোকেরা কাজ করুক।’

এ প্রসঙ্গে ড. ইনামুল হক আরও বলেন, ‘ছবি বাছাইয়ের ক্ষেত্রে মন্ত্রণালয়েরও একটি এখতিয়ার আছে। চূড়ান্ত অনুদান কমিটির ১১ সদস্যের সাতজনই তো মন্ত্রণালয়ের। সুতরাং তাদের ভিন্ন মতামত থাকতেই পারে। তাই আমি বলবো– যারা কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন তারা দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেননি।’

একই বিষয়ে সারাহ বেগম কবরী বলেন, ‘তাদের চারজনের পদত্যাগে কোনো ক্ষতি হয়েছে বলে আমি মনে করি না। অনুদানের চলচ্চিত্র বিষয়ে মন্ত্রণালয় যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে তা যথাযথ হয়েছে।’

তিনি অভিযোগ করেন, ‘হাসানুল হক ইনু তথ্যমন্ত্রী থাকা অবস্থায় আমি তিনবার ছবি জমা দেই। কিন্তু তারা (অনুদান কমিটি থেকে পদত্যাগীরা) আমার ছবিটি বাতিল করে। কিন্তু কেন বারবার বাতিল করা হলো সে বিষয়ে তারা কোনো ব্যাখ্যা দেননি।’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখক সম্পর্কে জানুন

এই রকম আরও সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *