অক্টোবর ২২, ২০১৯

জামিন পেলে বিদেশে চিকিৎসা নিতে যাবেন খালেদা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে তিনজন সংসদ সদস্য সাক্ষাৎ করেছেন। এ সময় তিনি জনগণের ভোটাধিকার ফেরাতে কাজ করার জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে কারা তত্ত্বাবধানে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সঙ্গে তারা সাক্ষাৎ করেন।

চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান বলেন, বিকেলে সাংসদ হারুনুর রশিদ, উকিল আব্দুর সাত্তার ও আমিনুল ইসলাম ম্যাডামের সঙ্গে স্বাক্ষাৎ করেন। তারা ঘণ্টাখানেক ম্যাডামের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করেন এবং তার শারীরিক অবস্থার খোঁজখবর নেন।

সাংসদ হারুনুর রশিদের বরাত দিয়ে প্রেস উইংয়ের এই কর্মকর্তা বলেন, তার (খালেদা জিয়া) শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। তিনি জামিন পেলে চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ী বিদেশে চিকিৎসা নিতে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

বিএনপি দলীয় তিন এমপি সাক্ষাৎ করে আসার পর সাংবাদিকদের কাছে নেত্রীর শারীরিক অবস্থা তুলে ধরে এরকম প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন হারুনুর রশীদ এমপি। যিনি দলের যুগ্ম মহাসচিবও।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের উকিল আব্দুস সাত্তার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের হারুনুর রশীদ এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের আমিনুল ইসলাম সাক্ষাৎ করেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচিত হওয়ার পর তাদের এই প্রথম সাক্ষাৎ। তারা নেত্রীর জন্য ফুলের তোড়া ও ফলের একটি ঝুড়ি নিয়ে যান।সাক্ষাৎ শেষে হারুনুর রশীদ সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন।

খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশে যেতে চান কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, খালেদা জিয়া চিকিৎসার সুযোগ পেলে তো অবশ্যই বিদেশ যাবেন। তিনি আজকে জামিন পেলে কালকেই বিদেশ যাবেন এবং যদি আজকে জামিন পায় তাহলে তার প্রথম অগ্রাধিকার হবে চিকিৎসা। তাহলে কালকেই দেখা যাবে যে, তিনি ভিসার জন্য আবেদন করবেন। যেরকম তার শারীরিক অবস্থা তাতে তার চিকিৎসা বাংলাদেশে বিশেষায়িত হাসপাতালে নেই।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া অসুস্থ। হাত দিয়ে নিজের খাওয়া নিজে খেতে পারেন না। তার হাত কাঁপে। নিজের কাপড় নিজে পড়তে পারেন না। এই অবস্থায় তাকে বন্দি রাখা-এটা কত বড় অমানবিক। খালেদা জিয়া শুধু দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।’

সাংগঠনিক বিষয়ে কোনো আলাপ হয়েছে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘তিনি দলের খোঁজ-খবর নিয়েছেন। গত একমাসে সারা দেশে বিভিন্ন বিভাগীয় সমাবেশের বিষয়ে তাকে বলা হয়েছে।’

‘শুনে তিনি শুধু বললেন, তোমরা সবাইকে নিয়ে দেখে-শুনে এক সঙ্গে থাক। দেশে গণতান্ত্রিক অবস্থা ফিরে আসলে মানুষ যেন মুক্তভাবে চলাফেরা করতে পারে, তাদের ভোটাধিকার ফিরে পায় সেজন্য কাজ করো।’

তিনি বলেন, ‘দেশবাসীর উদ্দেশ্যে জানাচ্ছি, খালেদা জিয়ার জামিনের যে অধিকার, সেই অধিকার থেকে তাকে বঞ্চিত করা হয়েছে। যত দ্রুত সরকার জামিন দেবে আইনের শাসনের ক্ষেত্রে দৃষ্টান্ত হয়ে থাকবে।’

সরকারের তরফ থেকে প্যারেলের কোনো প্রস্তাবনা আছে কিনা প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘এই ধরনের কোনো প্রস্তাবনা নেই। প্যারেলের বিষয়টা আসবে কেনো? তিনি তো জামিন পাওয়ার যোগ্য।’

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

লেখক সম্পর্কে জানুন

এই রকম আরও সংবাদ

1 মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *